আমার যৌন জীবন


এই সেক্স সাইটের গল্পগুলি পড়তে আমার খুবই ভাললাগে। পড়তে পড়তে একদিন মনে হলো আমার নিজের জীবনের ঘটনাগুলি লিখলে কেমন হয়? সেই ভাবনা থেকেই লিখতে বসলাম। আমার জীবনে দুজন পুরুষ আছে যারা আমার যৌন জীবনটাকে পূর্ণতা দান করেছে। এখন ওদেরকে ছাড়া আমার যৌন আনন্দ কল্পনাই করতে পারি না। এক জন হলো আমার স্বামী, আর এক জন হলো ওরই ঘনিষ্ঠ বন্ধু বাচ্চু। তাহলে গল্পোটা শুরুকরি….. সুযোগ পেলেই আমি বাসাতে নুড হয়ে থাকি। নুড হয়ে থাকতে আমার খুবই ভালো লাগে। স্বীকার করতে লজ্জা নাই যে, আমার গুদের কামোড় খুবই বেশী।

Read More »

জীনের যৌবন


মাজেদা বেগমের বাড়ী রসুলপুর গ্রামে। সাধারণ সাদামাটা গৃহস্ত ঘরের মেয়ে সে। লেখাপড়া প্রাথমিক বিদ্যালয় পযৃন্তই শেষ। দেখতে বেশ সুন্দর। গায়ের রং বেশ ফর্সা, শুদ্ধ ব্যকরণের শরীর, উচ্চতা পরিমিত। বিয়ে হয়েছে কম বয়সে। স্বামী প্রবাসী। এখন বয়স খানিকটা বেড়েছে। দুই সন্তানের মা হলেও শরীরের ভাঁজ নষ্ট হয়নি। জ্বালা ধরানো যৌবন এখনো অনেক পুরুষের ঘুম হারাম করার জন্য যথেষ্ট। স্বামী নুরুল ইসলাম বিদেশে থাকার কারণে মাজেদাও উন্মুখ থাকে পুরুষের সঙ্গ পেতে। পাড়া প্রতিবেশি অনেক ছেলে বুড়ো অনেকের সাথেই তার ভাল সম্পর্ক।

Read More »

থ্রীসাম


অফিস থেকে ফিরে বাসায় মধ্য বয়সী সুন্দরি মোটা তাজা বেশ বড় বড় দুধওয়ালি এক নতুন মহিলাকে দেখে জিজ্ঞ্যেস করলাম, কি ব্যাপার এ কে?
বউ জবাব দিল যে, কাজের মানুষ লাগবে নাকি খুঁজতে এসেছিল। কোথাও কেউ নেই, আগে এক বাসায় কাজ করত তারা এখান থেকে চলে গেছে। এখন এ যাবে কোথায় তাই রেখে দিলাম, বলেছি থাক এখানে। আমার বাসায় রিনা আছে, কাজেই অন্য কারো যদি লাগে সেখানে চলে যাবি।
বেশ ভালই করেছ। তা ওর গায়ের ব্লাউজটা দেখেছ? যে বাসায় থাকতো তারা কি এই ভাবেই রেখেছে, একটা ব্লাউজও দেয়নি? অন্তত তোমার একটাই দাও।

Read More »

মনি ভাবী


তখন আমার বয়স ২৪/২৫ হবে। একটা কোম্পানিতে মেডিকেল রিপ্রেজেন্তিভ হিসাবে কাজ করি। আমার পোস্টিং ছিল বগুরা সদরে। কিন্তু আমাকে সপ্তায় ৫ দিন থাকতে হত পাবনা জেলার বেড়া শহরে। অর্থাৎ মঙ্গলবার থেকে শনিবার বেড়া থাকতাম। রবিবার সকালে এসে বগুরা সদরে হেড অফিসে রিপোর্ট করতাম। বেড়াতে আমার এক বস ছিল নাম হেলালি তার সাথে আমার কাজ করতে হত।কোম্পানির পক্ষ থেকে আমাকে হোটেলে থাকা খাওয়ার বিল দিত। কিন্তু আমার বস আমাকে খুব পছন্দ করত, তাই সে আমাকে বলল তুমি হোটেলে না থেকে আমার বাসায় থাক তাতে তোমার হোটেলের টাকা তোমার থেকে যাবে। আমার বাসায় রুম খালি থাকে। আমি বললাম, আপনার কোন অসুবিধা না হলে আমার আপত্তি নাই।

Read More »

ব্যবধান


বিহারীর মাঠে বাবলুর মত বাবলুরা আড্ডা মারে ৷ একটা ফাঁকা জায়গায় বসে বাবলু নিজে থেকেই বদ্রি আর চান্দুকে পল্টুদার দেওয়া ওষুধটা দেখায় ৷ বদ্রি আর চান্দু ব্যাপারটা ঠিক ধরতে না পেরে বাবলুর লেকচারের জন্য ওয়েট করে। বাবলু এবার পাণ্ডিত্য ফলানোর সুযোগ পেয়ে সবিস্তারে ওষুধটার মাহাত্ম্য বর্ণনা করতে লেগে যায়। বাবলু বলে,’এটা এমন এক চিজ মামা রানি ক্লিওপেট্রারেও যদি একবার খালি খাওয়াইতে পার তাইলে ভাতার আন্টনিরে ছাইড়া মাগি তোমার সাথে বিছানায় যাইতে কোন আপত্তি করবো না!’

Read More »

পায়েল


আমি তমাল। টিপিক্যাল মধ্যবিত্ত ঘরের বর্ণচোরা আম বলতে যা বুঝায় আমি তাই। দেখতে শুনতে গোবেচারা টাইপের। কিন্তু আমার চোখ কান ফাঁকি দিয়ে জগত সংসারে খুব কম জিনিসই ঘটে থাকে। যাই হোক ভনিতা না করে সরাসরি নিজের বক্তব্য তুলে ধরতেই অভ্যস্ত আমি। পায়েল আমার চেয়ে বড়। আগেই বলেছি আমার চারপাশে ঘটে যাওয়া যাবতীয় বিষয়াদির প্রতি থাকে আমার তীক্ষ্ণ নজর। সম্ভবত এ কারনেই একদিন আমাদের বিল্ডিঙের পেছনে ক্রিকেট খেলার বল কুড়াতে গিয়ে মানব মানবীর শরীর নিয়ে গোপন এক খেলার সন্ধান পাই আমি।

Read More »

পাগলি


এনে দেওয়া মুড়ি চিবুতে চিবুতে এসব কথাই ভাবে মজনু। মালা ততক্ষনে গোবর আর মাটি পানি দিয়ে মিশিয়ে উঠোন লেপায় লেগে গেছে। মালা সারাক্ষন কোন না কোন কাজে ব্যস্ত থাকতে ভালবাসে। হয়ত এই করেই সে নিজের সব দুঃখ ভুলে থাকার চেষ্টা করে। মুড়ি খেতে খেতে মজনুর চোখ পড়ে মালার উপর। মালার দেহে যৌবনের জোয়ার বইছে। ভরাট নিতম্ব, ব্লাউজের ভেতর ছটফট করতে থাকা বড় বড় মাই দুটো আর দেহের আঁকাবাঁকা খাঁজগুলো সে কথাই মনে করিয়ে দিচ্ছিল।

Read More »